গুলঃ ০২

সবাই যখন বসন্ত বরনে ব্যস্ত তখনো আমি আমার হলের সিঙ্গেল খাটে চেগাইয়া ঘুমাইতেসি । অনেকদিন পর পাওয়া আয়েশি ঘুমটা ভাঙল রবিবাবুর ডাকে।

“বালক এখনো শুইয়া আছো কেন? উঠো, দেখো এই নতুন প্রকৃতি।

আজি বসন্ত জাগ্রত দ্বারে।

তব অবগুণ্ঠিত কুণ্ঠিত জীবনে

কোরো না বিড়ম্বিত তারে।

আজি খুলিয়ো হৃদয়দল খুলিয়ো,

আজি ভুলিয়ো আপনপর ভুলিয়ো,

এই সংগীত-মুখরিত গগনে

……………………………

……………………………

অসময়ে ঘুম ভাঙ্গায় মেজাজ সপ্তমে উঠার পর অষ্টম, নবম, দশমের ঘরও পার হইয়া গেলো। দেখলাম বিছানার পাশের চেয়ারে গুরুদেব বইসা বইসা আমার জি-পেনটা হাতে নিয়া ঘুরাইয়া ফিরাইয়া দেখতাসেন। খেঁচকাইয়া উঠলাম , গুরুদেব আপনে কি আর টাইম পান নাই? শুক্রবারের ঘুমটা দিলেনতো মাটি কইরা… কিইইইইইইইইইইইইইযে করেননা মাঝেমাঝে…  -_-

আমার ঝাড়ি শুনে রবিবাবু একটু কাঁচুমাচু হইয়া গেলেন। বলিলেন, দেখো কি সুন্দর প্রকৃতি…

আমি কইলাম, কই আমিতো আমার উপ্রের মশারি ছাড়া আর কিছুই দেখতাসিনা। -_-

মন খারাপ কইরা গুরুদেব বাতাসে মিলাইয়া গেলেন। আমি আবার ঘুম দেওয়ার চেষ্টা করিলাম। কিন্তু বজ্জাত ঘুম আর আসেনা।

কি আর করার আছে তাই ফেবুতে উঁকি দিলাম আর বুঝতে পারলাম আজ পহেলা ফাল্গুন। গুরুদেবকে বকাবকি করার কারনে মন কিঞ্চিৎ পরিমাণ খারাপ হইয়া গেল। নেক্সট টাইম দেখা দিলে মাফ চাইয়া নিতে হবে। অবশ্য যে পরিমানে খেঁচকাইয়া উঠসিলাম তাতে সন্দেহ আছে নেক্সট টাইম কবে দেখা দেন।

যাই হোক, পহেলা ফাগুনের শুভেচ্ছা রইলো সবার জন্য।  🙂

বিঃদ্রঃ গুরুদেবের সাথে আমার মাঝেমাঝে দেখা হয়। তিনি অতীব প্রকৃতির নরম দিলের মানুষ।

Advertisements

2 thoughts on “গুলঃ ০২

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s