মাসের শেষ চিঠি

প্রিয়তমা,
পত্রের প্রথমেই তোমাকে মনে করিয়ে দিতে চাই, আমি ছাত্র মানুষ। তোমাকে বুঝতে হবে, এটা মাসের শেষ । তোমার বাইক্কা কথা শোনার জন্য ফোনকল করার মতো টাকা আমার পকেটে নেই । ফেসবুকে চ্যাট করার জন্য ইন্টারনেট প্যাকেজ নেওয়ার টাকাও অনেক আগেই ফুরিয়ে গেছে । 
এই চিঠিখানাও বন্ধুর মডেম ধার করে লেখা হয়েছে । ভালো থেকো । আর যদি এই চিঠিখানি তোমার চোখে পড়ে তবে আমার ফোনে অন্তত একটা টেক্সট দিও ।
রোমেল 

Advertisements

মামা কাহিনী

বন্ধুকে ডাকি মামা, চায়ের দোকানদারকে ডাকি মামা, রিকশাওয়ালাকে ডাকি মামা, বাসের হেল্পারকে ডাকি মামা, সেলুনওয়ালাকে ডাকি মামা………… ব্লাহ ব্লাহ ব্লাহ
যে হারে আমরা একজন আরেকজনকে মামা ডাকা শুরু করেছি তাতে জাতি আজ চিন্তিত, কোনদিন না প্রেমিকারা প্রেমিককে মামা ডাকা শুরু করে দেয়।

[বিঃদ্রঃ ইতিমধ্যেই অনেকে বাবা ডাকা শুরু করেছে ]

কাহিনীটা কি ?

“মেয়ে বলে – ছিঃছিঃ
ছেলে বলে – আরে ধুর
আশেপাশে কেউ নাই
লোকালয় বহুদূর ।”

প্রকৃত কাহিনীটা কি ? আসুন, একটু চিন্তাভাবনা করে দেখি, কাহিনীটা কি হতে পারে –

#কাহিনী_১: একটি ছেলে আর একটি মেয়ে লং ড্রাইভে গিয়েছে । এক জনহীন নির্জন পথে গাড়ির ইঞ্জিন বিকল হয়ে গেল । বড্ড বেশি সর্বনেশে কাণ্ড !!! বাকি পথ পাড়ি দিবে কিভাবে ? মেয়ে আবার বাপমায়ের বড় বেশি আদুরে। এতদুর হাঁটাহাঁটি তার পক্ষে সম্ভব নয় । এখন কি আর করা ? মেয়ের লজ্জামিশ্রিত বাঁধার মুখেও ছেলে জোর করে মেয়েকে কাঁধে তোলে নিয়ে রওনা হয়ে গেল গন্তব্যের দিকে । (একটু বেশি ভালবাসেতো, তাই আরকি প্রেমিকাকে হাঁটতে দিচ্ছেনা) । এই ঘটনার কারণে উপরোক্ত ছড়ার সূত্রপাত ।

#কাহিনী_২: একটি ছেলে আর একটি মেয়ে কোন এক জায়গায় ঘুরতে গিয়েছে । পথে হঠাৎ মেয়ের স্টাইলিশ স্যান্ডেলের ফিতা ছিঁড়ে গেল । এখন কি আর করা ? তখন মেয়ের লজ্জামিশ্রিত বাঁধার মুখেও ছেলে জোর করে মেয়ের স্যান্ডেল নিয়ে কারিগরি শুরু করে দিল, যাতে কোনরকমে কিছুক্ষণের জন্য হলেও স্যান্ডেলটাকে একটু চলাচলের উপযোগী করা যায় কিনা । (একটু বেশি ভালবাসেতো, তাই আরকি প্রেমিকার তরে মুচি হতেও কোন লজ্জা নাই । আর তাছাড়া কেউই তো দেখছেনা তাইনা ? )

#কাহিনী_৩: আর কোন পরিস্থিতির কথা বর্তমানে আমার মাথায় নেই !!!! আপনারাই কিছু একটা ভেবে নিন ।

এইরাম – সেইরাম

টিভিতে কোন এক গয়নার বিজ্ঞাপন চলছে । তা দেখিয়ে স্ত্রী আহ্লাদী গলায় স্বামীকে বলল – এই শোন, তুমি আমাকে ইরাম একটা গয়নার সেট কিনা দিবা ?
স্বামী – ইরাম টা আবার কি জিনিস ?
স্ত্রী – তুমি যে কিনা ? “ইরাম” মানে জাননা ? “ইরাম” মানে হচ্ছে “এইরকম” ।
স্বামী – তো, এইরকম না বইলা ইরাম বলতাসো কেন ?
স্ত্রী – ঐ যে দেখ নাই ? সেইরকম – সেইরাম – সেরাম – সিরাম । ঠিক ইরামভাবে ইরাম আরকি ।

অপ্পা গ্যাংনাম স্টাইল

আমি – ওওওওও **** লেইডি…………………..
পাশ দিয়ে হেঁটে যাওয়া রমণী মারমুখো ভঙ্গিতে তেড়ে এসে বললেন- কি বললেন… কি বললেন আপনি ? ছোটলোক, ইতর, ফাতরা, অসভ্য, বখাটে…… ব্লাহ ব্লাহ ব্লাহ
আমি – অপ্পা গ্যাংনাম স্টাইল । গান গাওয়ার চেষ্টায় আছি ম্যাডাম, আপনাকে কিছু বলছিনা ..

উড়না আর সর্দি

নাহয় একটু ভুলবশতই তোমার উড়নায় নাকের সর্দি মুছে ফেলেছি । তাই বলে আমাকে খাটাশ ডাকতে একটুও মুখে বাধলোনা তোমার ? এই সামান্য ব্যাপারটাই যদি মেনে নিতে নাপারো তবে ………… থাক, আর বললাম না